দেশজুড়ে

এই মাত্র পাওয়া জানা গেল কখন হবে পূর্ণ সূ’র্য’গ্র’হণ

পূ’র্ণ সূ’র্য’গ্র’হণ ঘ’ট’বে সোমবার (১৪ ডিসেম্বর)। তবে বাংলাদেশ থেকে এ সূ’র্য’গ্র’হণ দেখা যাবে না বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর।রোববার (১৩ ডিসেম্বর) আ’ব’হাওয়া অ’ধি’দপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আ’ব’হাওয়া অ’ধি’দফতর জানিয়েছে, পূর্ণ সূ’র্য’গ্র’হণ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সোমবার সন্ধ্যা ৭টা ৩৪ মিনিটে, কেন্দ্রীয় গ্রহণ শুরু হবে রাত ৮টা ৩২ মিনিটে, সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে রাত ১০টা ১৩ মিনিটে, কেন্দ্রীয় গ্রহণ শেষ হবে রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে এবং পূ’র্ণগ্র’হণ শেষ হবে রাত ১২টা ৫৩ মিনিটে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, জ’র্জ টা’উন থেকে উত্তর-পশ্চিম দিকে দক্ষিণ প্র’শা’স্ত ম’হা’স’গরে গ্র’হণ শুরু, অ্যাডামস টাউন থেকে উত্তর দিকে দক্ষিণ প্র’শা’ন্ত ম’হাসা’গরে কেন্দ্রীয় গ্র’হণ শুরু, আর্জেন্টিনার রিও নি”গ্রো শহরের ন্যু’ভে দ্য জু’লিও ডিপার্টমেন্টে সর্বোচ্চ গ্রহণ শুরু, নামিবিয়ার নামিব-নউকলাফট ন্যাশনাল,

পার্ক থেকে পশ্চিম দিকে দক্ষিণ প্রশান্ত ম’হা’সা’গ’রে কেন্দ্রীয় গ্র’হণ শেষ এবং সেন্ট হেলেনা অ্যা”সে’নশি’ওন অ্যান্ড ত্রি’স্তা’ন দ্য কুনহা থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে দক্ষিণ প্রশান্ত ম”হা’সা’গ’রে গ্র’হণ শেষ হবে। আরোও পড়ুনঃ বাথ’রুম বা ট’য়লেটে আমরা যেসব ভু’ল কাজ করে থাকি! স’তর্ক হন নাহলে….

মানব দে’হের কার্যকারীতা অনুযায়ী আমাদের শ’রীরের সব বর্জ্য নির্গত হয় প্রস্রাব ও ম’লের দ্বারা। অপ্রয়োজনীয় বর্জ্য পদার্থ ভি’তরে থাকলে শ’রীরের ক্ষ’তি হয়। যেহেতু সেগু’লি বর্জ্য সেহেতু সেগু’লি ক্ষ’তিকারক ও দূষণ ছড়ায়।

তাই আম’রা যেখানে সেখানে ম’ল মূ’ত্র ত্যা’গ না ক’রে কোন নির্দিস্ট স্থানে সেটি করি। কারন এগু’লি থেকে বাহিত জী’বাণু সকলের নানা রকম ক্ষ’তিসাধন ক’রে। আম’রা জী’বাণু থেকে নিজেদের বাঁ’চানোর জন্য টয়লেট ও বাথরুম ব্যবহার করি ঠিকই’ কিন্তু আম’রা সেখানেও কিছু ভু’ল ক’রে ফেলি যার প’রিণতি হয় ভ’য়ঙ্কর।

আসুন তাহলে জে’নে নিন কি সেই ভু’ল গুলো’ আর সা’বধান হয়ে যান সেই সেই ভু’ল থেকে। ১। আমাদের দিনের প্রথম শুরু হয় দাঁত ব্রাশ ক’রে’ অনেকে টুথব্রাশ ব্যবহারের পর বাথরুমেই রেখে দেয়। ভিজে ব্রাশ বাথরুমে রেখে দিলে তা সহজে শুকনো হতে চায় না। আর সেখানে জ’ন্ম নেয় জী’বাণু। আর সেই ব্রাশ পরের দিন মুখে প্রবেশ ক’রালে জী’বাণুও মুখে প্রবেশ ক’রে।

তাই ব্রাশ কোন শুকনো যায়গায় রাখাই ভালো। ২। নিজে’র মেকাপের জিনিস বাথরুমে নিয়ে যাওয়া বা রাখা একদম উচিৎ নয়। কারন বাথরুমে থাকা জী’বাণু মেকাপ সামগ্রীতে খুব সহজেই প্রবেশ ক’রে। আর সেই মেকাপ যখন ত্বকে ব্যবহার ক’রা হয় জী’বাণু রোমকুপের দ্বারা শ’রীরের ভি’তরে প্রবেশ ক’রে।

৩। যারা যারা স্নানের সময় লুফা ব্যবহার ক’রেন তাদের উদ্দেশ্যে বলছি’ তাদের ব্যবহৃত ভিজে লুফা বাথরুমে রেখে দেওয়া একদম ঠিক নয়। কারন ভিজে জিনিসে ব্যাকটেরিয়া বেশি জ’ন্ম নেয়। তাই স্নানের পর লুফা ভালো ক’রে রোদে শুকিয়ে তবে পুনরা’য় ব্যবহার ক’রা উচিৎ।

৪। এই একই পদ্ধতি অবলম্বন ক’রতে হবে তোয়ালের ক্ষেত্রে। তোয়ালে কখনো বাথরুমে টাঙ্গিয়ে রাখা উচিৎ নয়। বাথরুমের সমস্ত জী’বাণু ও ব্যাকটেরিয়া এসে জমা হয় তোয়ালেতে। আর আপনি যখন সেই তোয়ালে ব্যবহার করবেন সেই জী’বাণু প্রবেশ করবে আপনার শ’রীরে।

৫। অনেকে মোবাইল নিয়ে বাথরুমে অনেক সময় কাটান। এই কাজটি খুব ভু’ল কাজ। মোবাইল বাথরুমে অনেকক্ষণ থাকায় তাতে অনেক জী’বাণু প্রবেশ ক’রে। আর তারপর সেই মোবাইল নিয়ে কানে দিয়ে কথা বলার সময় জী’বাণু প্রবেশ ক’রে কানে।

৬। অনেকে কমোডে ফ্ল্যাশ ক’রার পর কমোডের ঢাকনা না দিয়েই বেড়িয়ে আসেন। এর ফলে জী’বাণু ছ’ড়িয়ে পরে। কমোড থেকে জী’বাণু প্রা’য় ৬ফুট পর্যন্ত উঠতে পারে। তাই সকলের উচিৎ কমোডের ঢাকনা ব’ন্ধ ক’রে দেওয়া। তাহলে আর জী’বাণু চারিদিকে ছড়াবে না।

৭। স্নানের জন্য সাবান সকলের বাথরুমেই থাকে। আম’রা স্নানের সময় ঐ সাবান ব্যবহার করি। কিন্তু কেউ সাবানের উপরের ভাগ পরিস্কার করিনা। সাবানের উপরে জমা হতে থাকে অনেক জী’বাণু। তাই ব্যবহারের আগে সাবান ধুয়ে নেওয়াই ভালো।

Related Articles

Back to top button