ছাত্রীর মায়ের স;ঙ্গে প;রকী’য়া ক’রতে এসে ধ’রা শিক্ষক!

103

বগুড়ার আদমদীঘিতে ছাত্রীর মায়ের স’ঙ্গে প’রকী’য়া করতে এসে স্বা’মীর হাতে ধ’রা খেয়েছেন শি’ক্ষ’ক। বুধবার দুপুরে উপজে’লার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়ন প’রিষ’দে তিন লাখ টাকার বি’নি’ম’য়ে বিষয়টি রফাদফা ক’রেন ইউপি চেয়া’র’ম্যা’ন আব্দুল হক আবু।

তবে এ ঘ’ট’নায় রহ’স্য’জনক কারণে নীর’ব ভূমিকায় পু’লি’শ। স্থা’নী’য়রা জানায়, উপজে’লার ছাতিয়ানগ্রাম বাজার এলাকার জনৈক তরকারি ব্য’ব’সায়ী মোসলেম উদ্দীনের নবম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে বাড়িতে গিয়ে প্রাইভেট পড়ান অ’ভিযু’ক্ত শি’ক্ষ’ক হাসান। মেয়েকে বাড়িতে গিয়ে প’ড়ানোর সূ’ত্র ধরে মা মীনা বেগমের সাথে,

প’রকী’য়া’র স’ম্প’র্ক গড়ে ওঠে ওই শি’ক্ষ’কের। বিষয়টি তার স্বা’মী জানতে পেরে শি’ক্ষ’কের ওপর ন’জ’র রাখেন। একপর্যায়ে পরকী’য়ার টানে ওই শি’ক্ষ’ক মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ওই ছাত্রীর মায়ের ঘরে প্রবেশ ক’র’লে তার স্বা’মী ঘরের বাহির থেকে দর’জাতে তালা লাগিয়ে দিয়ে চিৎ’কার শুরু ক’রেন।

পু’লি’শ খবর পেয়ে ওই দিন রাতেই ঘ’ট’নাস্থলে এসে আ’ট’ক দুজনের সাথে কথা বলে র’হ’স্যজনক কারণে আ’ই’নগত কোনো প’দক্ষেপ না নিয়ে ঘ’ট’নাস্থল থেকে চলে যান। অ’ভিযু’ক্ত ওই শি’ক্ষ’ক ছাতিয়ানগ্রামের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শি’ক্ষ’ক। ইউপি চেয়া’র’ম্যা’ন আব্দুল হক আবুর নে’তৃ’ত্বে দুপুর পর্যন্ত আ’ট’ক রাখা,

ওই শি’ক্ষ’ককে দুপুরে ইউনিয়ন প’রিষ’দ কা’র্যা’লয়ে আ’না হয়। চেয়া’র’ম্যা’ন অ’ভিযু’ক্ত ওই শি’ক্ষ’কের তিন লা’খ টাকা জ’রিমা’না ক’রেন এবং তার লি’খিত মু’চলে’কা নিয়ে ছে’ড়ে দেন। এ ব্যাপারে ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়ন প’রিষ’দের চেয়া’র’ম্যা’ন আব্দুল হক আবু টাকা লে’নদে’ন বিষয়টি অ’স্বী’কা’র ক’রে বলেন, শি’ক্ষ’ককে,

ফাঁ’সাতে এটা ছাত্রীর পরিবারের একটি চ’ক্রা’ন্ত। শা’লিসের মাধ্যমে এটা সমাধান করা হয়েছে। আদমদীঘি থা”নার ওসি জালাল উদ্দীন মুঠোফোনে জানান, খবর পেয়ে ঘ’ট’নাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। তবে ওই ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ বা’দী হননি। এ কারণে আ’ই’নগত ব্য’ব’স্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি।