ধ’র্ষ’ককে ছু’রি দিয়ে ২৫ বার কু’পি’য়ে থা’নায় ফোন দিল ম’হিলা

ধ’র্ষ’ণের অ’ভিযোগে এক ব্য’ক্তিকে কু’পিয়ে খু’ন ক’রে নিজেই পু’লিশে খবর দিলেন এক মহিলা। এর পরেই মধ্যপ্রদেশ পু’লিশ ওই মহিলাকে গ্রে’ফতার ক’রেছে। জা’না গিয়েছে,

ছু’রি দিয়ে কমপক্ষে ২৫ বার কোপ মে’রে খু’ন ক’রা হয়। কিন্তু কীসের এত রাগ? মহিলা জা’নিয়েছেন, ২০০৫ সাল থেকে ১৫ বছর ধ’রে তাঁকে বার বার ধ’র্ষ’ণ ক’রে ওই ব্য’ক্তি। গত ১২ অক্টোবর ফের সেই চেষ্টা ক’রতে গেলেই তিনি অ’স্ত্র হাতে তুলে নেন। রাজধানী ভোপাল থেকে ২০০ কিলোমিটার দূ’রে গুনা জে’লার,

এই ঘ’টনায় মৃ’তের নাম ব্রিজভূষণ শর্মা। পু’লিশ জা’নিয়েছে, ওই ব্রিজভূষণ জে’লার অশো’ক নগরের বাসিন্দা। খু’নের অ’ভিযোগে মহিলার বি’রুদ্ধে ৩০২ ধারা’য় মা’ম’লা রুজু ক’রেছে পু’লিশ। ওই মহিলা পু’লিশকে জা’নিয়েছেন, ব্রিজভূষণ তাঁর প্রতিবেশী ছিল। মাত্র ১৬ বছর বয়সে তিনি প্রথম বার ওই ব্য’ক্তির হাতে ধ’র্ষিত হন।

সেই মু’হূর্তের একটি ভিডিয়ো তুলে রাখে ব্রিজভূষণ। এর পর ব্ল্যাকমেলিং চলতে থাকে। ভিডিয়ো ছড়িয়ে দেওয়ার শাসানির মুখে দিনের পর দিন তিনি শা’রীরিক স’স্পর্কে যেতে রাজি হন। মহিলার বিয়ে হয়ে যাওয়ার পরেও একই ভাবে হু’মকি ও অ’ত্যাচার চলতে থাকে। দিন দিন তা বাড়তেই থাকে।

এবার তাই নির্যাতককে চ’রম শা’স্তি দেওয়ার সিদ্ধা’ন্ত নেন দুই মেয়ের মা। খু’নের দিন ঠিক কী হয়েছিল তাও পু’লিশকে জা’নিয়েছেন মহিলা। তাঁর বয়ান মতো, গত ১২ অক্টবোর ম’দ্যপ অব’স্থায় ব্রিজভূষণ তাঁর বাড়িতে আসে। সেদিন তাঁর স্বা’মী ক’র্মসূত্রে শহরের বাইরে ছিলেন। সেই সুযোগটা নিয়েই ধ’র্ষ’ণ ক’রতে আসে ব্রিজভূষণ।

মহিলার দুই মেয়ে তখন অন্য ঘরে ঘুমাচ্ছিল। এমন সময় মেয়েদের হে’নস্থা ক’রার কথা বলে ব্রিজভূষণ। এর পরেই তিনি রান্নাঘর থেকে ছু’রি নিয়ে এসে এলোপাথাড়ি ভাবে কো’পাতে শুরু ক’রেন। মৃ’ত্যু হয় ব্রিজভূষণের। এর পরেই থা’নায় ফোন ক’রে সমস্তটা জা’নিয়ে খু’নের কথা স্বী’কার ক’রেন মহিলা।

error: Content is protected !!