কিডনি’র পাথর থেকে বাঁচতে হলে শুধু ২টি কাজ করবেন

আমাদের দে’হের র’ক্ত প’রিশোধ নের অ’ঙ্গ কি’ডনি। এছাড়াও শ’রীরে জমে থাকা অনেক রকম বর্জ্যও প’রিশোধ িত হয় কি’ডনির মাধ্যমে। কি’ডনির নানা স’মস্যার মধ্যে সবচেয়ে বড় স’মস্যা হচ্ছে কি’ডনিতে পাথর হওয়া।

কিন্তু ঠিক কি কি কারণে কি’ডনিতে পাথর হওয়া রো’ধ ক’রতে পারবেন, জা’নেন কি? আসুন জে’নে নেয়া যাক কি’ডনিতে পাথর হওয়ার কারণগুলো স’স্পর্কে, যা হয়তো আপনার জা’না নেই।

কাচা লবন খাবেন না-নেকেই খাবারে লবণ খান যা স্বা’স্থ্যের জন্য খুবই ক্ষ’তিকর। কারণ লবণের সোডিয়াম খুব সহজে কি’ডনি দূ’র ক’রতে পারে না এবং তা জমা হতে থাকে কি’ডনিতে। এছাড়াও অতিরি’ক্ত সোডিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের কারণেও কি’ডনিতে পাথর জমা’র সম্ভাবনা বাড়ে।

জল পান করুন-কি’ডনির কাজ হচ্ছে দে’হের বর্জ্য ছেঁকে দে’হকে টক্সিনমু’ক্ত ক’রা। আর এই কাজটি কি’ডনি ক’রে জলের সহায়তায়। যদি আপনি জলে পরিমিত পান না ক’রেন তাহলে কি’ডনি সঠিকভাবে দে’হের বর্জ্য দূ’র ক’রতে পারে না যা কি’ডনিতে জমা হতে থাকে পাথর হিসেবে। সুতরাং পরিমিত জল পান করুন।

আরোও পড়ুনঃ ঘরোয়াভাবে দূর করুন বগলের কালচেভাব
আমাদের শ’রীরে বিভিন্ন স্থানে অবাঞ্ছিত লোম গজায়। এসব জায়গায় লোম ফেলে দেয়ার পর কালো দাগের সৃষ্টি হয় ফলে আমাদের অস্বস্থিতে পড়তে হয়। সাধারণত বগলের নীচের কালো দাগটাই বেশি বিব্রতকর। প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে দূ’র ক’রা যায় বগলের কালচেভাব।

লেবুর রস: লেবুতে আছে প্রাকৃতিক ব্লিচিং উপাদান যা ত্বকের বিবর্ণভাব দূ’র ক’রতে সাহায্য ক’রে। গোসলের সময় আক্রা’ন্তস্থানে দুতিন মিনিট ধ’রে লেবু ঘষুন। গোসলের পরে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন, সাত থেকে ১০ দিনের মধ্যেই ফলাফল চোখে পড়বে।

আলুর রস: আলুও খুব ভালো প্রাকৃতিক ব্লিচ এবং ‘অ্যান্টি-ইরিটেন্ট’ বা প্রদাহ-হীন যা বাহুমূলের নিচের রং হালকা ক’রতে এবং জ্বা’লাভাব থেকে তা’ৎক্ষণি’ক আরাম দিতে সাহায্য ক’রে। আক্রা’ন্ত স্থানে পাতলা ক’রে কাটা আলুর টুক’রা বা রস ১০ থেকে ১৫ মিনিট লা’গিয়ে রাখু’ন। ভালো ফলাফলের জন্য দিনে দুবার ব্যবহার করুন।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার: এতে আছে মৃদু অ্যাসিড যা ত্বকের মৃ’ত কোষ এবং ফাঙ্গাস দূ’র ক’রে। দুই টেবিল-চামচ ভিনিগার ও বেইকিং সোডা মি’শি’য়ে আক্রা’ন্ত স্থানে লা’গান। ১০ মিনিট পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করুন।

জলপাইয়ের তেল: এক টেবিল-চামচ জলপাইয়ের তেল ও বাদামি চিনি মি’শি’য়ে তা দিয়ে দুএক মিনিট স্ক্রাব করুন। পাঁচ মিনিট অপেক্ষা ক’রে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুবার ব্যবহার করুন। ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

অ্যালোভেরা: বাজারে কিনতে পাওয়া যায় বা তাজা অ্যালো ভেরা নিয়ে আক্রা’ন্ত স্থানে লা’গান। ১৫ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। এটা প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর যা মৃ’ত কোষ দূ’র ক’রে। এর ব্যাকটেরিয়া-রো’ধী উপাদান ত্বক কোম’ল ও মসৃণ ক’রে।

error: Content is protected !!