না খেয়ে থাকতে পারি, কিন্তু শারী’রিক স’ম্পর্ক ছাড়া থাকতে পারি না

285

না খেয়ে থাকতে পারলেও শারী’রিক স’ম্পর্ক ছাড়া থাকতে পারবেন না বলে মন্তব্য ক’রেছেন তামিল ও তেলেগু ছবির জনপ্রিয় অভিনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু।

একটি ম্যাগাজিনের জন্য চলতি বছর ফটোশুট ক’রেন তিনি। সেখানে এক সাক্ষাৎকারে যৌ* নতা বিষয়ে বি’স্ফোরক মন্তব্য ক’রেন নায়িকা। স’ম্প্রতি সামান্থার সেই বি’স্ফো’রণ মন্তব্যটি ভা’ইরা’ল হয়েছে নেট দুনিয়ায়। সাক্ষাৎকারে সামান্থাকে প্রশ্ন ক’রা হয়, শারী’রিক স’স্পর্ক ও খাবার এর মধ্যে কোনটাকে বেছে নেবেন।

কোনও চিন্তা না ক’রে সামান্থার অকপট উত্তর, ‘অবশ্যই শারী’রিক স’স্পর্ক। না খেয়ে আমি থাকতে পারি।’ সামান্থা অভিনীত মু’ক্তিপ্রাপ্ত সর্বশেষ সিনেমা ‘মনমধুড়ু টু’। নাগার্জুনা আক্কিনেনির অন্নপূর্ণা স্টুডিওয়ের ব্যানারে নির্মিত এ সিনেমায় ক্যামিও চরিত্রে অভিনয় ক’রেন সামান্থা।  রাহুল রবীন্দ্র পরিচালিত এ সিনেমা গত ৯ আগস্ট মু’ক্তি পায়।

অন্যদিকে, তেলেগু ভাষার ‘৯৬’ সিনেমাটি ‘জানু’ নামে রিমেক হয়েছে। এতে কে’ন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় ক’রেছেন তিনি। খুব শিগগির মু’ক্তি পাবে এটি। আরোও পড়ুনঃ আজীবন যৌ’বন ধরে রাখে যেসব খাবার—নিজেকে সু’স্থ-সবল রাখতে পুষ্টিকর খাবারের দিকে নজর দেয়া দরকার। সবাই চায় আজীবন যৌ’বন ধ’রে রাখতে।

সু’স্থ থাকতে এবং তারুণ্য ও যৌ’বন ধ’রে রাখতে পুষ্টিকর খাবারের কোনো বিকল্প নেই। এমন কিছু খাবার আছে যা নিয়ম ক’রে খেলে আপনার যৌ’বন থাকবে অটুট। জে’নে নিন খাবারের মাধ্যমে আজীবন যৌ’বন রাখার কিছু কৌ’শল। আজীবন যৌ’বন ধ’রে রাখবে যেসব খাবার, তা স’স্পর্কে থাকছে বি’স্তারিত-

দই: দই আমাদের অনেকের কাছে খুব প্রিয় একটি খাবার। দই মেদ ও কোলেস্টেরল কমাতে সহায়তা ক’রে। যারা যৌ’বন ধ’রে রাখতে চান তাদের জন্য আশার কথা হচ্ছে নিয়মিত দই খান। দইয়ে প্রচুর প্রোটিন ও ক্যালসিয়াম আছে যা শ’রীরের গঠন ভালো রাখে এবং হাড়ের ক্ষয় রো’ধ ক’রে। দই বয়সজনিত কারণে হওয়া রো’গগুলো প্র’তিরো’ধ ক’রে।

এছাড়াও দই ত্বককে রাখে বলিরেখা মু’ক্ত। তাই যৌ’বন ধ’রে রাখতে চাইলে প্রতিদিন দই খান। সামুদ্রিক মাছ: সামুদ্রিক মাছ যৌ’বন ধ’রে রাখতে সহায়ক। দীর্ঘ দিন যৌ’বন ধ’রে রাখতে চাইলে নিয়মিত খাবার তালিকায় লাল মাংস বাদ দিয়ে সামুদ্রিক মাছ রাখু’ন। তাতে শ’রীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিনের চাহি’দা পূরণ হয়ে যাবে এবং যৌ’বন ধ’রে রাখা যাবে বহুদিন।

মিষ্টিকুমড়ার বিচি: এতে আছ প্রচুর সাইটোস্টেরোল। এটি পুরুষের দে’হে টেসটোস্টেরন হরমোনের ভারসাম্য র’ক্ষা ক’রে। এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ফ্যাটি এসিড পুরুষের শ’ক্তি বাড়ায়। পুরুষের সক্ষ’মতা বৃ’দ্ধিতে সহায়ক।

কলা: কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। পটাশিয়ামের অভাবে ত্বক রুক্ষ হয়, কলা সেই পটাশিয়ামের অভাব পূরণ ক’রে দেয়। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদে’হের যৌ* নরস উৎপাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও যা শ’রীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সহায়ক এবং যৌ’বন ধ’রে রাখতে সহায়ক।

আম’লা: আয়ুর্বেদ চিকিৎ’সায় একে পুরুষের শা’রীরিক সক্ষ’মতা মন্ত্র বলে গণ্য ক’রা হয়। পুরুষের শ’রীরের সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখতেও দারুণ সহায়ক।

ফলমূল: ফলে আছে প্রচুর ফাইবার, ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা শ’রীরে পুষ্টি যোগায় ও রো’গ প্র’তিরো’ধ ক্ষ’মতা বাড়ায়। তাই যৌ’বন ধ’রে রাখতে চাইলে নিয়মিত ফল খান।

রঙিন শাক-সবজি: রঙিন শাক-সবজিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন যা শ’রীরের চাহি’দা মেটায় এবং শ’রীরকে সু’স্থ্ রাখতে সহায়তা ক’রে। নিয়মিত রঙিন শাকসবজি খেলে আপনার যৌ’বন থাকবে অটুট।

কম’লালেবু: কম’লালেবু খাওয়া শ’রীরের জন্য খুবই ভাল। কারণ এতে অনেক ভিটামিন-সি থাকে। ত্বক টানটান রাখতে কম’লালেবু সাহায্য ক’রে।

অলিভ অয়েল: অলিভ তেল আপনার যৌ’বনকে ধ’রে রাখতে সাহায্য করবে। রান্নায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করলে শ’রীরে ক্ষ’তিকর কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায় এবং সহজে মেদ জমে না। এছাড়াও প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে ত্বকে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ ক’রে ঘুমালে ত্বকে বলিরেখা পরে না সহজে। ফলে দীর্ঘ দিন যৌ’বন ধ’রে রাখা যায়।

ডার্ক চকলেট: যারা চকলেট ভালোবাসেন তাদের জন্য ভালো খবর হলো ডার্ক চকলেট বয়স ধ’রে রাখতে সহায়তা ক’রে। ডার্ক চকলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। তাই যারা নিয়মিত প্রতিদিন ছোট এক টুক’রা ডার্ক চকলেট খান তারা দীর্ঘদিন যৌ’বন ধ’রে রাখতে পারেন।

স্ট্রবেরি: স্ট্রবেরি হোক কিংবা ব্ল্যাকবেরি, সবকটিই আপনার শ’রীরের জন্য খুবই ভালো। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে। আপনার ত্বককে ক’রে রাখবে সতেজ।

রসুন: রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈ'হিক ইন্দ্রিয়গুলোতে র’ক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। দৈ'হিক স’মস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

নিজে’র যৌ’বন ধ’রে রাখতে পুষ্টিকর খাবারের প্রতি জো’র’ দেয়া দরকার। উপরিউক্ত খাবার গু’লি আপনার জীবন ও যৌ’বনকে ধ’রে রাখবে আজীবন। তাই নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান আর সর্বদা নিজেকে হাসি-খুশি রাখু’ন, বিষণ্নতা কোনোভাবেই ধারে-কাছে ভিড়তে দেবেন না।