সে’লফি তুলতে গিয়ে মা’রা গেলেন ভা’রতীয় ক্রিকেটার শি’খর

30

সুযোগ পেলেই ব’ন্ধুদের নিয়ে ভ্রমণে বেরিয়ে পড়ার নে”শা ছিল তার। আর বিভিন্ন লোকেশনে সেলফি তোলাও ছিল তার সেই নে’শার অন্যতম উপকরণ।কিন্তু এই নে’শাই তার প্রা’ণ কেড়ে নিল।

মঙ্গলবার পাহাড়ে ট্র্যাকিং ক’রতে গিয়ে সেলফি তোলার সময় ২৫০ ফুট উঁচু থেকে প’ড়ে যান ভারতের এক ক্রিকেটার। মুহূ’র্তেই প্রা’ণ হা’রান তিনি।ভারতের সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জা’নিয়েছে, সেলফি তুলতে গিয়ে মা’রা যাওয়া ওই ভারতীয় ক্রিকেটারের নাম শিখর গাওলি। তার বয়স হয়েছিল ৪৫ বছর। মহারাষ্ট্র দলের হয়ে রঞ্জি ট্রফিতে দুটি ম্যাচ খেলেছেন শিখর।

মৃ’ত্যুব’রণ করার আগে মহারাষ্ট্র রঞ্জি দলের ফিটনেস ট্রেইনারের দায়িত্ব পা’লন ক’রতেন তিনি। লগাতপুরি পু’লিশ স্টেশনের ইন্সপেক্টর অশো’ক রত্নপারখি গাওলির মৃ’ত্যুর খবর নি’শ্চিত ক’রেছেন।ইন্সপেক্টর অশো’ক বলেন, ‘শিখরের স’ঙ্গে থাকা ব’ন্ধুরা আমাদের জা’নিয়েছে, সেলফি তুলতে গিয়ে নিজে’র ভারসা’ম্য হা’রিয়ে ফে’লে এবং নিচে প’ড়ে গিয়ে মা’রা যান।

ম’য়নাতদ’ন্তের পর তার ম’র’দে’হ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’এদিকে গাওয়ালির মৃ’ত্যুতে শো’ক প্র’কাশ ক’রেছেন মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি রিয়াজ বাগওয়ান।তিনি বলেন, ‘সপ্তাহ দুয়েক আগে শিখরের বাবার মৃ’ত্যু হয়। পরিবারটি ক’ঠিন সময়ের মধ্যে ছিল। এরইমধ্যে শিখরকে হা’রাল তারা।

শিখর আমাদের দলের অ’ভিজ্ঞ ও খুব কা’র্যকরী স্টাফ ছিল। আম’রা শিগগিরই শিখরের পরিবারকে সমবে’দনা জা’নাতে তার বাড়িতে যাব।’ শিখরের ঘনিষ্ঠ ছিলেন ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের ব্যাটসম্যান কেদার যাদভ। শিখরের এমন চলে যাওয়াকে মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে যাদভের।

তিনি বলেন, ‘খুবই ক’র্মঠ ছিলেন শিখর।  সবাই সাহায্য ক’রতেন।তার মতো ট্রেইনারের তুলনা হয় না। সবসময় হাসিমুখে আমাদের উন্নতি চাইতেন। মহারাষ্ট্র খেলোয়াড়রা এবং ব্য’ক্তিগতভাবে আমিও তাকে অনেক মিস করব।’