এক কন্যা সন্তানের পিতৃত্বের দাবি নিয়ে হাসপাতালে হাজির তিন বাবা!

19

জ’ন্মের পর সদ্যোজাত শি’শুকে ফে’লে পালানোর নজির অনেক আছে। কিন্তু এবার তার ব্য’তিক্রম চিত্র দেখা গেছে। একটি মেয়ে শি’শুর পিতৃত্বের দা’বি নিয়ে হাজির হয়েছেন একজন নয়, বরং তিনজন বাবা! এ

মন বিচিত্র ঘ’টনাটি ঘ’টেছে ভারতের কলকাতার একটি হাসপাতালে। ভারতের শী’র্ষস্থা’নীয় গণমাধ্যম জিনিউজে’র খবরে বলা হয়েছে, গত শনিবার উত্তরপাড়ার স্বপ্না মৈত্রকে বাঘাযতীনের গাঙ্গুলীবাগানের বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করান রবীন্দ্রপল্লীর বাসিন্দা দীপঙ্কর পাল নামের একজন। সে সময় স্বপ্নার স্বামী হিসেবে তিনি নিজেকে পরিচয় দেন।

গত রবিবার স্বপ্নার একটি মেয়ে সন্তান হয়। এর পরই গোলমাল বাঁধে। হোয়াটসঅ্যাপে স্বপ্নার স্ট্যাটাস আপডেট দেখে হাসপাতালে হাজির হন নিউটাউনের বাসিন্দা হর্ষ ক্ষেত্রী। তিনি দা’বি করেন, মেয়ে ও স্ত্রী তার। এ ঘ’টনায় হাসপাতাল ক’র্তৃপক্ষ প’ড়েন অথৈ জলে। বাধ্য হয়ে নেতাজিনগর থা’নায় খবর দেন হাসপাতাল ক’র্তৃপক্ষ।

এদিকে রবিবার দুজন দা’বিদার হতেই ঘরে কাউকেই ঢু’কতে দেয়নি হাসপাতাল ক’র্তৃপক্ষ। স্বপ্নার কেবিনের সামনে নি’রাপত্তা ক’র্মী বসিয়ে দেওয়া হয়। নিউটাউনের বাসিন্দা হর্ষ অবশ্য ম্যারেজ সার্টিফিকেটসহ কয়েকটি নথি দেখান। হাতে প্রমাণ পেয়ে পু’লিশ ও হাসপাতাল ক’র্তৃপক্ষ যখন একটু স্বস্তি বোধ করছেন তখনই কাহানি অন্য দিকে মোড় নেয়।

সদ্যোজাত এই মেয়ে শি’শু তার – এই দা’বি নিয়ে হাসপাতালে হাজির হন প্রদীপ রায় নামে আরও এক ব্য’ক্তি। জটিলতা বাড়ায় আর কোনো ঝুঁ’কি নেয়নি হাসপাতাল ক’র্তৃপক্ষ। এদিকে ওই শি’শুর বিষয়ে তার মা স্বপ্না এখনো কোনো মন্তব্য করেননি। কিন্তু মেয়ে আ’সলে কার- এর উত্তর খুঁজতে তদ’ন্ত করছে পু’লিশ।