অবশেষে ধ’র্ষ’কের সাথেই ধ’র্ষিতার বিয়ে

15

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ধ’র্ষকের সাথে ধ’র্ষিতার বিয়ে হয়েছে। ১০লক্ষ টাকা দেনমোহরের মধ্যে ৯লক্ষ ৮৫হাজার টাকা বাকী। এঘ’টনায় এলাকায় ব্যা’পক চা’ঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জা’না গেছে, ২১আগষ্ট রাতে উপজে’লার ফতেখাঁ গ্রামের চাঞ্চল্যকর মাদরাসা ছাত্রী ধ’র্ষণ মা’মলার আসামী পাশর্^বর্তী উলিপুর উপজে’লার দলদলিয়া ইউনিয়নের ক’র্পূরা গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের পুত্র সেফারুল ইসলাম (২৫) এর সাথে ওই ধ’র্ষিতা মেয়েটির বিয়ে হয়। উভ’য় পক্ষের পরিবারের লোকদের উপ’স্থিতিতে ১০লক্ষ টাকা দে’নমো’হর ধার্য করে বিয়ে হলেও,

নগদ ১হাজার ৫শ টাকা ছাড়া দেনমোহরের পুরো টাকাই বাকী রাখা হয় বলে জা’নান প্রত্যক্ষদর্শী ও বিবাহ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ব্য’ক্তিরা। ঘড়িয়ালডাঁঙ্গা ইননিয়নের নিকাহ রেজিষ্টার (কাজী) সাইফুল ইসলাম ঘ’টনার সত্যতা স্বী’কার করে জা’নান,২১আগষ্ট রাতে উভ’য় পক্ষের অভিভাবকের উপ’স্থিতিতে বিবাহ রেজিষ্ট্রী করেছি এবং রাতেই মেয়েটিকে শ^শুর বাড়িতে নিয়ে গেছে।

রাজারহাট থা’নার অফিসার ই’নচার্জ রাজু সরকার বলেন,বিয়ের কথা শুনেছি।উল্লেখ্য,উপজে’লার ঘড়িয়ালডাঁঙ্গা ইউনিয়নের ফতেখাঁ কারামতিয়া দাখিল মাদরাসার এক দাখিল পরীক্ষার্থীনীর সাথে পাশর্^বর্তী উলিপুর উপজে’লার দলদলিয়া ইউনিয়নের কর্পূরা গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের পুত্র সেফারুল ইসলাম (২৫) এর পূর্ব পরিচয় ছিল।

সেই সূত্র ধ’রে সেফারুল বিয়ের প্র’লোভন দেখিয়ে মেয়েটিকে জো’ড়পূ’র্বক ধ’র্ষণের অ’ভিযোগে ধ’র্ষিতার পিতা বাদী হয়ে ১৯মে’২০২০ তারিখে রাজারহাট থা’নায় একটি মা’মলা দা’য়ের করেন। যা তদ’ন্তাধীন রয়েছে।