৯ বছরেই পাবেন জমা টাকার তিনগুণ

5

ভবিষ্যতের জন্য কে না চায় টাকা জমাতে। সেই জমানো টাকা একসময় হয়ে উঠবে অধিক গু’রুত্ব পূর্ণ। আর সেই জমানো টাকায় যদি বেশি সুদ মেলে, পাঁচ থেকে ছয় বছরে যদি টাকা দ্বিগুণ হয়, তাহলে তো কথায় নেই।

হ্যাঁ পাঠক, আপনি যদি ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় ক’রতে চান, তাহলে এখনই ভালো সময়। কারণ, ব্যাংকগুলোতে টাকা জমা রাখলে এখন যে পরিমাণ সুদ মি’লছে, ভবিষ্যতে তা মিলবে না। তবে গ্রাহক হিসেবে আপনাকে একটু খোঁ’জখবর নিতে হবে যে ব্যাংকে টাকা জমা রাখবেন, তার আর্থিক অবস্থার। এরপরই টাকা জমা ক’রতে হবে।

তা না হলে শুধু বেশি সুদ পাওয়ার আশায় টাকা জমা রেখে বি’পদও হতে পারে। ব্যাংকগুলোতে খোঁ’জ নিয়ে জা’না গেছে, ব্যাংক খাতে ২০১২-১৩ সালের দিকে যেমন তারল্যসংক’ট চলছিল, পাঁচ বছর পর আবার সেই প’রিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এ জন্য সব ব্যাংকই এখন আমানতের ওপর সুদহার বাড়িয়ে দিয়েছে। বেশির ভাগ ব্যাংক এখন আমানতে ৯ শতাংশের ওপরে সুদ দিচ্ছে।

অনেকের আমানতের সুদহার ১১ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। গ্রাহকেরা কী দেখে ব্যাংক যাচাই করবেন, এ নিয়ে জানতে চাইলে পূবালী ব্যাংকের ব্যব’স্থাপনা পরিচালক আবদুল হালিম চৌধুরী বলেন, টাকা জমা রাখার ক্ষেত্রে গ্রাহকের দেখা উচিত ব্যাংকের রেটিং কেমন, খেলাপি ঋণ কত। আর ব্যাংকটি কারা পরিচালনা করছেন, ব্যব’স্থাপনায় কারা আছেন, তা-ও দেখা উচিত।

বিশেষ করে ব্যাংকটির ভাবমূর্তি কেমন, সেটা খুব গু’রুত্ব পূর্ণ। এসব বিবেচনা করেই গ্রাহকের ব্যাংক বাছাই করা উচিত, সুদহার দেখে নয়। ব্যাংকগুলো আমানতের সুদহারে যে প্র’তিশ্রুতি দেয়, সময় শেষে তা প্রদান করে না। গ্রাহকদের এমন অ’ভিযোগ দীর্ঘদিনের। এ নিয়ে ব্যাংক ক’র্মকর্তারা বলছেন, গ্রাহকেরা যদি স্থা’য়ী আমানত রাখে,

তাহলে ব্যাংকের প্র’তিশ্রুতি লঙ্ঘনের কোনো সুযোগ নেই। অর্থাৎ যদি কোনো ব্যাংক ছয় বছরে দ্বিগুণ টাকা দিতে চায়, তাহলে সেই ব্যাংককে সেই টাকা দিতেই হবে। তবে প্রতি মাসে টাকা জমা করলে তাতে সুদহারের পরিবর্তন হতে পারে।

ক’র্মকর্তারা বলছেন, বেশির ভাগ ব্যাংক চলতি বছরে সুদহার বাড়িয়েছে। বিশেষ করে নতুন প্রজ’ন্মের ব্যাংকগুলোই বেশি সুদে টাকা জমা নিচ্ছে। এর মধ্যে ফারমা’র্স ব্যাংকের নাম বদলে হওয়া পদ্মা ব্যাংক সাড়ে পাঁচ বছরে দ্বিগুণ টাকা ফেরত দেওয়ার প্র’তিশ্রুতি দিয়ে আমানত নিচ্ছে। অর্থাৎ কেউ ১০ লাখ টাকা জমা করলে ৫ বছর ৬ মাস পর ব্যাংক ওই গ্রাহককে ২০ লাখ টাকা ফেরত দেবে।

যদিও এর আগে ব্যাংকটিতে টাকা জমা রেখে বি’পদে প’ড়েছিল গ্রাহকেরা। তবে এখন সেই প’রিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। এ ছাড়া নতুন ব্যাংকের মধ্যে মধুমতি ব্যাংক ৫ বছর ১০ মাসে দ্বিগুণ ও ৯ বছরে তিন গুণ টাকা ফেরত দেওয়ার প্র’তিশ্রুতি দিয়ে আমানত নিচ্ছে, যাতে সুদহার পড়ছে যথাক্রমে ১২ দশমিক ৭৫ ও ১২ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ৬ বছর ৬ মাসে টাকা দ্বিগুণ করার আশ্বা’সে আমানত নিচ্ছে, যাতে সুদহার পড়ছে ১০ দশমিক ৭২ শতাংশ। ইউনিয়ন ব্যাংক ৬ বছর ৫ মাসে টাকা দ্বিগুণ করার আশ্বা’সে আমানত নিচ্ছে। সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমা’র্স ব্যাংক সাত বছরে দ্বিগুণ টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বা’সে আমানত সংগ্রহ করছে।

আর পুরোনো ব্যাংকগুলোর মধ্যে এক্সিম ব্যাংক ৬ বছরে দ্বিগুণ ও ১১ বছরে তিন গুণ টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বা’স দিয়ে আমানত সংগ্রহ করছে। টাকা দ্বিগুণ ক’রতে আইএফআইসি, ন্যাশনাল ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক সময় নিচ্ছে ৭ বছর ৬ মাস। আর টাকা দ্বিগুণ ক’রতে ঢাকা ব্যাংক ৮ বছর, ইউসিবিএল ৮ বছর ৫ মাস, ব্র্যাক ব্যাংক ৮ বছর ১১ মাস, সিটি ব্যাংক ৯ বছর সময় নিচ্ছে। আবার পুরোনো কয়েকটি ব্যাংক টাকা দ্বিগুণ করার আমানত পণ্য ব’ন্ধও করে দিয়েছে।

জানতে চাইলে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি ক’র্মকর্তা রাশিদুল হাসান বলেন, ‘টাকা জমা রাখলে একটা সময় পর তা বেড়ে দ্বিগুণ-তিন গুণ হবে, এমন সেবাই আম’রা চাই। তবে কোথায় রাখলে টাকা নি’রাপদে থাকবে এবং সময়মতো ফেরত পাব, সেটা জা’না বেশ ক’ঠিন।’ তথ্যসূত্র: প্রথম আলো।